রবিবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৪:২৭ পূর্বাহ্ন

মার্জিয়া জাহানের পদাবলি

মার্জিয়া জাহানের পদাবলি

প্রতীক্ষা

কে তুমি স্বপ্নকুমার, স্বপ্নে আসো বারেবার
স্বপ্নবিলাসীকে মুগ্ধ করো, রেখে সকল আবদার
তুমি যে তার প্রিয়জন, সে কথা জানে ক’জন!
স্বপ্নবিলাসী স্বপ্নে বাঁচে, যেথায় তুমার দেখা মেলে
স্বপ্নে তাকে বিভোর করে রেখেছো
এখন স্বপ্ন ছাড়া সে বুঝেনা কিছু।
সস্বপ্নবিলাসী আর স্বপ্ন দেখেনা,
খুঁজে যায় সারাবেলা।
তোমায় নিয়ে যে মাধূর্য স্বপন,
করেছে রোপন; মনের গুপ্ত কুঠিরে,
সার্থক হবেনা স্বপন, তোমায় না পেলে।
তবে কেন যাবে হারিয়ে?
বহুদিন,বহুবার, বারবার সে চেয়েছিলো
কেউ একজন আসুক– বিশুদ্ধতম
ঠিক তোমার মত।
তবে তুমি এসেই পরোনা –
কী আর ক্ষতি হবে এত।

স্বপ্ন

একদিন স্বপ্নরা সব বিলীন হয়ে যাবে,
মনের আনাচে কানাচে যে সুরগুলো মাদল বাজিয়ে মাতিয়ে রাখা।
গভীরের ভয়াল আর্তনাদেও বাস্তবে কি সুনিবিড়, শান্তময়, ধীরতা!
তুমার পথচলাও থেমে যাবে হে অভিনেতা।
স্বপ্ন নয়, বলি জীবনের কথা-
মায়ার টানে যত আড়ম্বরতা- সব-ই ত অযথা।

ভুল সীমানায়

ভুল শহরের ভুল আকাশে
ভুলের ঘোরে ভুল তাঁরা খুঁজে যাওয়া
ভুল সীমানায়, ভুল বাহানায় দুরান্তে,
ভুল সময়ে বুঝতে পারা!
ভুল নিদর্শনে, ভুল অনুপ্রেরণায়
ভুলে ভুলে হ-য-ব-র-ল।
অনুভুলের বেড়াজালে ধুম্র পাহাড়
নিঃসীম শূন্যে ভুলের বাহার।
অপার্থিব জগতে ভুল-সঠিক নাই বুঝার জ্ঞান
আমি ভুল অনুরাগী – করি ভুল করে,
ভুল কিছুর ধ্যান।
ভুল ব্যাথায় ব্যথিত হওয়া বারণ।
ক্ষুদ্র প্রতীতি থাকে যতক্ষণ,
তটিনীর তরঙ্গের ন্যায় ভাসবে জীবন।
আবোলতাবোল ভুল বাহারি – ভুলের তরে মগ্ন!
ভুল করে ভেবে নেয় – কিছু ভুলেও মধুরতা!
মাঝে মাঝে বুঝা যায় ধরার কিছু গভীরতা।।

কতকিছুই পাইনি

এই সেই, কতকিছুই পাইনি
কত স্বপ্ন পূরণের বাকি,
অভিযোগে টইটুম্বুর!
এবার যে ধরার নতুন রুপে
সর্বপ্রানী দিশেহারা
নিয়তি যেন প্রতিজ্ঞাবদ্ধ,
নিঃস্ব করায় নাছোরবান্দা!
তবে এ অবেলায় বুঝতে পারা মষ্তিস্ক
ভুলে গেছে সকল অভিযোগ।
যা আছে, তা নিয়েই বাঁচার সাধ
আরও কিছুদূর! যদি হয় সুযোগ!

লকডাউন

প্রাণঘাতী করোনায় বিশ্ব গিয়েছে থেমে
হারিয়েছে উচ্ছল প্রাণ
লকডাউনে বসা কর্মহীন, আতংক আর ভয়
বাতাসে ভেসে আসে লাশের ঘ্রাণ ।
মনে কি পড়ে কবে হয়েছিল দেখা?
নদীর কিনারের ঘাট আজ শুন্য,
হীজল তমাল দাঁড়িয়ে আছে একা।
আর কিছুদিন একাই থাকি ঘরেই থাকি,
যুদ্ধ জয়ের মাত্র ক’দিন বাকি।
কেটে যাবে আতংক, ভয়
করোনার যুদ্ধে মানুষের হবে জয়।
আবার সূর্য উঠবে, চা-কফি সেন্ডউইচ
সবি হবে আড্ডায়
হৃদয় ভরে উঠবে কথায় কথায়-
সহাস্যে–উত্তাপে মমতায়।
আবার দেখবো-
নারকেল গাছের পাতার ফাঁকে
নবমীর চাঁদের হাসি।
হে বং জননী, হে কিশোরগঞ্জ
তুমি আমার অহংকার, গর্ব
তোমায় আমি ভীষণ ভালোবাসি ।।

জীবন

জীবন যেখানে থমকে দাঁড়ায়
অপ্রাপ্তির শুন্যতায়,
বারংবার খুঁজেও অবশিষ্টাংশ না পাই!
তবে এক দীর্ঘশ্বাসের তরে
উড়িয়ে ভাসিয়ে সব,
শুরু থেকে শুরু করা যাক
নতুন এক স্বপ্ন ডানায়।।

জীবন নামের গোলকধাঁধায়
নিজেকে খুঁজে বেড়াই।
যতবারই খুঁজে যাই-
জটিলতার হিসাব-নিকাশে
প্রতিনিয়ত পুড়ে ছাই!
আমি ক্লান্ত, বহুপথ পেড়িয়েও শুন্য।
কত যে অতল, চোখের কোনে জমা জল!
তবুও এক চিলতে হাসির তরে,
বিদায় জানাতে পাড়ি পাহাড় সম দুঃখটারে।
বুঝার নাই সাধ্য কারও
আমি যে ধৈর্যশীল আরও!

শেযার করুন...




© All rights reserved
Design & Developed BY ThemesBazar.Com