আড়ালে গিয়ে ছিনতাইয়ের কবলে বাবা, ২৫ বছর পর পরিবার খুঁজে পেল আঁখি

১৯৯৬ সালে ঢাকার একটি কোম্পানিতে পিওন পদে চাকরি করতেন মানিক মিয়া। সেই সুবাদে স্ত্রী, দুই ছেলে আর দুই মেয়েকে নিয়ে থাকতেন রাজধানীতেই। পাশের বাসার এক বৃদ্ধার টাকা চুরি করায় ২৫ বছর আগের ছয় বছরের ছোট্ট মেয়ে আঁখিনুরের ওপর ক্ষুব্ধ হয়েছিলেন তার বাবা মানিক মিয়া।

মেয়েকে ভয় দেখিয়ে শিক্ষা দিতে চিন্তা করেছিলেন এক আজব উপায়। সেই উপায়ই তার কাল হয়ে দাঁড়ালো। সেই উপায় মোতাবেক মেয়েকে রাজধানীর গুলিস্তান এলাকার একটি রাস্তার মোড়ে পানের দোকানের সামনে রেখে আড়াল হয়েছিলেন।

তবে, আড়ালে গিয়ে ছিনতাইকারীর কবলে পড়েন মানিক মিয়া। তাদের হাত থেকে ছাড়া পেতে বেশ সময় লেগে যায় তার। ততক্ষণে এসে দেখেন সেখানে তার মেয়েটি আর নাই। আঁখিকে হারানোর পর অনেক খোঁজাখুঁজি করেও তার সন্ধান মেলেনি।

মেয়ের সন্ধানে এলাকায় মাইকিং, পত্রিকায় বিজ্ঞাপন ও থানায় সাধারণ ডায়েরি করাসহ কবিরাজের কথায় দেশের বিভিন্ন স্থানে ঘুরেছেন বাবা মানিক মিয়া। তবুও পাওয়া হয়নি মেয়েকে।

এরপর কেটে গেছে পঁচিশটি বছর। এ গল্প রূপ কথার গল্প নয় বা সিনেমারও নয়। ধরেই নিয়েছিলেন আর ফিরে পাবেন না মেয়েকে। তবে সেই ভাবনাকে ভুল প্রমাণ করে সম্প্রতি ‘আপন ঠিকানা’ শিরোনামে এক অনুষ্ঠানে আঁখির একটি ভিডিও সাক্ষাৎকার প্রচার করেন আরজে কিবরিয়া।

সেই সূত্রেই আঁখির সন্ধান পায় তার পরিবার। গত শুক্রবার (১৮ সেপ্টম্বর) ময়মনসিংহের গফরগাঁও উপজেলার লংগাইর ইউনিয়নের মাইজবাড়ী গ্রামে নিজ বাড়িতে ফেরেন তিনি। সেখানে মেয়েকে কাছে পেয়ে আনন্দে আত্মহারা পুরো পরিবার।

সেই সাক্ষাৎকারে আঁখিনুর বলেন, সেদিন বাবাকে না পেয়ে অনেক কান্নাকাটি করে একটি লেগুনায় উঠি। আমাকে কাঁদতে দেখে এক লোক আমাকে নিয়ে যান। পরে একটি আশ্রয়কেন্দ্রে রেখে আসেন। এরপর থেকে শুরু হয় নতুন এক জীবন। আশ্রয়কেন্দ্রেই বড় হই।

সেখান থেকে বের হয়ে একটি বিউটি পার্লারে কাজ শুরু করি। এক সময় মোবাইল ফোনের মাধ্যমে আশুলিয়ার মাসুম মোল্লার সঙ্গে পরিচয় হয় এবং পরে বিয়ে করি। স্বামীর সঙ্গে সেখানেই বসবাস করছি। এখন আমি এক ছেলে ও এক মেয়ের মা।

তিনি আরও বলেন, মোবাইলে মাঝেমধেই ‘আপন ঠিকানা’ অনুষ্ঠানে বিভিন্ন মানুষের হারিয়ে যাওয়া ও পরিবার ফিরে পাওয়ার গল্প শুনি। আমারও মন চাইতো, আমার হারিয়ে যাওয়ার গল্পটা যদি বলতে পারতাম।

আর আমার মা-বাবা যদি সেটা শুনে আমার খোজঁ নেয়। তাই ওই অনুষ্ঠানে সাক্ষাৎকার চেয়ে আবেদন করি। বহুদিন অপেক্ষা করে ডাক পাই। পরে সেখানে আমার সাক্ষাৎকার প্রচার করা হলে তা ফেসবুকে অনেক শেয়ার হয়।

সেই সূত্র ধরেই আমার পরিবার আমার খোজঁ পায়। দীর্ঘদিন পর মা-বাবা ও পরিবারের সদস্যদের কাছে পেয়ে আঁখি কান্নায় ভেঙে পড়েন। আঁখি বলেন, এ আনন্দ বলে বোঝানো যাবে না। একই রকম আপ্লুত পরিবারের অন্য সদস্যরাও।

আঁখির বাবা মানিক মিয়া বলেন, এত বছর পরে এভাবে মেয়েকে খুঁজে পাব তা কখনও কল্পনাও করিনি। মেয়ে হারানো যে কত কষ্টের, তা সেই বাবা-মা-ই বোঝেন। দীর্ঘদিনের চাপা কষ্ট অবশেষে দূর হলো।

মা জহুরা বেগম বলেন, মেয়ে হারানোর পর অনেক কান্নাকাটি করেছি। আল্লাহর কাছে দুই হাত তুলে মেয়েকে চেয়েছি। এত বছর পর হলেও আল্লাহ আমার কথা শুনেছেন, মেয়েকে আমার কাছে ফিরিয়ে দিয়েছেন। এখন আমার আর কোনো কষ্ট নাই।

হারিয়ে যাওয়া পরিবারের কাছে ফিরেছে স্ত্রী আঁখি। উচ্ছ্বসিত হয়ে স্বামী মাসুম মোল্লা বলেন, আমি সব কিছু জেনেই আঁখিকে বিয়ে করেছিলাম। বিয়ের পরও তার পরিবারকে খুঁজে পেয়ে অনেক চেষ্টা আমি করেছি। আরজে কিবরিয়া ভাইয়ের কারণে সেই চেষ্টা অবশেষে স্বার্থক হলো।

Author: admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *