বুধবার, ০৫ অগাস্ট ২০২০, ০৫:৩৯ পূর্বাহ্ন

জহুর কবিরের কবিতাগুচ্ছ

জহুর কবিরের কবিতাগুচ্ছ

আগুয়ান - কবিতা - সাহিত্য- গীতিকবিতা - লিরিক্স - গানের কথা - গীতিকার - ওয়েবম্যাগ - Agooan - Johur Kabir - Lyrics - Poem - gaaner kotha - bangla song - song writer
আগুয়ান - কবিতা - সাহিত্য-

কবি

নবীদের পরে কবিরায় হয় জ্ঞানী,
অমরতা পায় লিখে কবিতার বাণী।
কবিদের মন বিশুদ্ধ পরিপাটি,
স্বর্ণের মতো জ্বলে পুড়ে করে খাঁটি।
প্রকৃতির মতো দিয়ে যায় অকাতরে,
চায়না কিছুই পেতে দুই হাত ভরে।
পরেনা গলায় কবি স্বার্থের হার,
ধূপ হয়ে পুড়ে সাজায় এ সংসার।
কবি চায় ভালোবাসা পেতে অফুরান,
প্রেম পেলে দিয়ে যায় পুষ্পিত প্রাণ।

দূষণ মুক্ত শহর চাই

এই শহরে বেশি ধরে রঙ বেরঙের ব্যারামে,
তারচে ভালো হাগল পোষা গিয়ে ওই গাঁও গেরামে।
তাজা তাজা শাকসবজিতে প্রচুর আছে ভিটামিন,
গাঁও গেরামের মাংস মাছে মেশায়না ভাই ফরমালিন।
খাঁটি দুধের পায়েস আয়েশ করে নিত্য খাওয়া যায়,
জাম জামরুল আম কাঁঠালের মধুর সুবাস পাওয়া যায়।
ছায়া ঘেরা মায়া ঘেরা দূষণ মুক্ত অক্সিজেন,
এতো কিছু জেনেও হলাম ডার্টি ঢাকার সিটিজেন।
ভেজাল খেয়ে কমে গেছে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা,
রোবট হয়ে চলতে চলতে নাইরে মায়া মমতা।
শহর থেকে গেরাম ভালো স্বীকার করতে দ্বিধা নাই,
সুস্থ সবল থাকতে হলে দূষণ মুক্ত শহর চাই।

চিত্রকর

নেকড়ে অরণ্যে সময়ের প্রতিচিত্র আঁকে এক চিত্রকর
চাইলে নিভিতে দিতে পারো উদয়ের আগে প্রভাকর।
আমি আঁকি যা দেখি ভালো মন্দ দুটোই তুলির টানে,
তেলাপোকা হয়ে বাঁচাতে নেইতো জীবনের কোনো মানে।
শোষকের মসনদ ভেঙে দিই আঘাতে মোমের মতো,
সূর্যের মতো থাকি আমি অক্ষয় থাকি অক্ষত।
যারা লুটে খায় গরিবের ত্রাণ লুটে নেয় সম্বল,
তাদের দুয়ারে আনি উদ্যত প্রলয়ের দাবনল।
হুশিয়ার আমি এই নিপীড়িত জনতার হাতিয়ার,
শাষন দুর্গ এক তুড়িতেই ভেঙে করি চুরমার।
ধুলাতে মিশাই অত্যাচারীর ঠুনকো তাসের ঘর,
দীন হীন যারা তাদের জন্য আমি কল্যাণকর।

সেই দুটো চোখ

পড়ন্ত বিকেলের মতো সেই চোখ দুটো কই,
কাব্য সাজাতে গিয়ে প্রিয় প্রিয় পথ চেয়ে রই।
জোয়ারের পরে ভাটা বয়ে যায় এলে তুমি কই?
কতো নদী প্রতিক্ষা বলো আমি এই বুকে বই।

শালিক পাখি

অনেক যত্নে পুষে ছিলাম একটি শালিক পাখি,
রোজ সকালে ঘুম ভাঙাতো কিচিরমিচির ডাকি।
পাখির জন্য ধানের ক্ষেতে ধরতে যেতাম ফড়িং,
ফড়িং গুলো ধানের পাতায় নাচতো তিড়িংবিড়িং।
ছয় মাসেতে পাখি আমার শিখে গেছে বুলি,
হঠাৎ একদিন ডাকলো আমায় কেমন আছো তুলি?
পাখি আমার নাম ডেকেছে তাইতো লাগলো খুশি,
অনেক সোহাগ মায়া দিয়ে পাখিটারে পুষি।
খাঁচা একদিন ছিলো খোলা করিনি হায় খেয়াল,
নিয়ে যাচ্ছে পাখিটাকে বিড়াল টপকে দেয়াল।
করলাম আমি লাঠি নিয়ে বিড়ালটাকে তাড়া,
অবশেষে শালিক পাখি পেলে এবার ছাড়া।
বনের পাখি ঠিক তখনি উড়িয়ে দিয়ে বনে,
এক চিলতে খুশির ঝলক উঠলো ফুটে মনে।
বনের পাখি বনে থাকুন বনেই থাকে মানায়,
ভালোই লাগে ওড়ে যখন ভর করে তার ডানায়।

শেয়ার করুন...




© All rights reserved
Design & Developed BY ThemesBazar.Com